SS TV live
SS News
wb_sunny

এই মুহুর্তে

সোনারগাঁয়ে যানবাহনে অধিক আলোর এলইডি লাইটের ব্যবহারে বেড়েছে দুর্ঘটনা।

 



সোনারগাঁয়ে সড়ক ও মহাসড়কগুলোতে সন্ধ্যা নামলেই চলাচল করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। কারণ অটোরিক্সা, সিএনজি, মটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহনে এলইডি লাইটের ব্যবহার। এ লাইটের আলো এতটাই তীব্র যে বিপরীত দিক থেকে আসা কিছুই দেখা যায়না। ফলে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা। আর এই লাইট ব্যবহার বন্ধ করতে সোনারগাঁ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হচ্ছেনা কোন আইনি ব্যবস্থা।

চিকিৎসকদের মতে, এলইডি লাইটের আলো সরাসরি চোখে লাগলে চোখ ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। এমনকি ধীরে ধীরে অন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রকট।

সোনারগাঁ উপজেলা রোডের কয়েকজন ব্যাক্তির সাথে কথা বলে জানা যায়,বর্তমানে যেকোনো সাধারণ ব্যক্তি রাতে ঢাকা চট্টগ্রাম হাইওয়ে ও উপজেলার বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়কে বের হলেই গাড়ির হেডলাইটের যন্ত্রণায় পড়ে। আর যানবাহনের হেডলাইটের এবং এলইডি লাইটের আলোর প্রভাবে রাতে চলাচল অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে নানান ধরনের যানবাহনের সংখ্যা আর সেই সাথে বেড়ে চলছে এলইডি লাইটের ব্যবহার। যানবাহনের সাথে লাগানো এলইডি লাইটের আলো চলাচলের সময় তীব্র আলো চোখে পড়ায় সাধারণ মানুষের পথ চলতে নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়। প্রতিনিয়ত মানুষ সড়ক দূর্ঘটনার সম্মুখীন হচ্ছে। দিনদিন যেন এই আলোর কারণে জনজীবনে দুর্ভোগের শেষ নেই।

এলইডি লাইটের অধিক ব্যবহারের দিকে পুলিশ প্রশাসনের কোন মাথা ব্যাথা নেই।কোন প্রকার অভিযান না থাকায় এলইডি লাইটের ব্যবহার কমছে না। রাতে ব্যস্ততম ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও উপজেলা রোড সহ প্রায় বিভিন্ন অলিগলি ঘুরে সরোজমিন দেখা যায়, প্রতিটি অটোভ্যান, অটোরিকশা, ইজিবাইক, সিএনজি,মোটরসাইকেলসহ অন্যান্য অনেক যানবাহনে এলইডি লাইটের ব্যবহার।

এছাড়াও মহাসড়কে চলাচলকারী বাস, ট্রাক, প্রাইভেটকারসহ কোন গাড়ির হেডলাইটের উপরের অংশে এখন আর কালো রং ব্যবহার করা হয় না। যার কারণে এ সকল গাড়ির আলো সরাসরি বিপরীত দিক থেকে আসা গাড়ির চালক ও পথচারিদের চোখে ধাঁধিয়ে যায়। আর তখনই ঘটে দুর্ঘটনা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কাঁচপুর হাইওয়ে (ওসি) সাজ্জাদ করিম খান জানান,এলইডি লাইটের ব্যাপারে খুব শীগ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে। পরবর্তীতে গাড়িগুলোতে লাইটের কোন অনিয়ম পেলে মামলা করা হবে।

Tags

সাবসক্রাইব করুন!

সবার আগে নিউজ পেতে সাবসক্রাইব করুন!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন