SS TV live
youtube
wb_sunny

এই মুহুর্তে

বন্দরে মুছাপুরে মজিবুর গংদের বিরুদ্ধে স্থানীয়দের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

 




(নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

 নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নে এলাকায় একটি কবরস্থানের ফলজ ও বনজ গাছ নামমাত্র মূল্যে বিক্রয়  ও ছোট ছোট ফল ধরে থাকা অবস্থায়ও নির্বিচারে গাছগুলো কর্তন করায় এ নিয়ে স্থানীয় সচেতন মহল কর্তৃক ফেসবুকে প্রতিবাদী পোস্ট দেয়ায় ও সেই পোস্টকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ নেতা মজিবুর গংদের কর্তৃক আহাম্মদ আলী নামে একজন দোকানদারকে পিটিয়ে আহত করা, জাতীয় পার্টি নেতা সাখাওয়াত হোসেন এবং তার পরিবারের লোকজনকে মারধর ও লাঞ্ছিত করা সহ নিরিহ গ্রামবাসীর উপর হামলা চালানোর ঘটনায় (২৭ এপ্রিল) মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের নয়াগাঁও এলাকায় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ স্থানীয় শত শত নারী পুরুষের উপস্থিতিতে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরে স্থানীয়রা মজিবুর গংদের বিচার দাবী করে এবং মজিবুর রহমানকে মুছাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে বহিস্কারের দাবী জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন, যা মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। মানববন্ধনে উপস্থিত স্থানীয়রা তাদের বক্তব্যে বলেন, করোনা মহামারির কারণে   যখন অক্সিজেনের ব্যাপক প্রয়োজন। তখন আওয়ামী লীগ নেতা মজিবুর ও তার ভাই ঈদগাহ ও কবরস্থান উন্নয়ন কমিটির সভাপতি রিয়াজুল স্বেচ্ছাচারীভাবে কমিটির কাউকে না জানিয়ে নিজের একক সিদ্ধান্তে উক্ত কবরস্থানের ১৫টি ফলজ ও বনজ গাছ বিক্রয় ও নির্বিচারে কর্তন করে। ফেসবুকে প্রতিবাদ জানানোয় ছেলেকে না পেয়ে রোজাদার নিরিহ এক বৃদ্ধ দোকানদারকে মজিবুর নিজ হাতে মারধর করেছে। মসজিদের ভিতর আওয়ামী লীগ নেতা তাজউদ্দিন আহম্মেদকে প্রভাব খাটিয়ে মজিবুরের ভাই মোখলেছ হুমকি প্রদান করে এবং তার প্রতিবাদ জানানোয় মজিবুর এবং তার ভাই ও ভাতিজারা আরও দলবল নিয়ে সংঘবদ্ধ হয়ে জাতীয় পার্টি নেতা সাখাওয়াত এবং তার পরিবারের লোকজন ও গ্রামবাসীর উপর হামলা চালায়। তাদের কাছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাও নিরাপদ নয়। জাতীয় পার্টি নেতা সাখাওয়াতকে বিএনপির সাথে জড়িত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। মজিবুর ও তার পরিবারের লোকজন ৩০ বছর ধরে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে নানাবিধ অপকর্ম ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে বেড়াচ্ছে। তারা ভূমিদস্যুতা করে থাকে। আমরা এর প্রতিকার চাই। তাই তাদেরকে ঈদগাহ ও কবরস্থান উন্নয়ন কমিটি থেকে বাদ দেয়ার দাবী জানাচ্ছি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ের নিকট আমরা দাবী জানাই অতিসত্তর মজিবুরকে মুছাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে বহিস্কার করা হউক। আমাদের প্রাণপ্রিয় চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেনকে জড়িয়ে তারা অপপ্রচার চালাচ্ছে এবং অপ্রীতিকর বক্তব্য দিচ্ছে। আমরা তাদের এ ধরণের বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। চেয়ারম্যান মাকসুদকে নিয়ে পুনরায় কটাক্ষ করা হলে তাদের বিরুদ্ধে আমরা কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো। তাদের অপকর্মের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে নারায়ণগঞ্জের মাননীয় পুলিশ সুপার সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। উক্ত কর্মসূচিতে মুছাপুর ১৪ গ্রামের সম্মিলিত ঈদগাহ ও কবরস্থান উন্নয়ন কমিটির প্রধান উপদেষ্টা হাজী বোরহান উদ্দিন, উপদেষ্টা হাজী দেলোয়ার হোসেন, সদস্য সিরাজুল ইসলাম, মুছাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক তাজউদ্দিন আহমেদ, ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহ আলম, আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক মেম্বার আব্দুল কাদির, সমাজসেবক শাহাদাৎ হোসেন, সাবেক মেম্বার মঞ্জুর আলম, ইঞ্জিনিয়ার সোলায়মান, সমাজসেবক আসিফ হোসেন রুবেল, মাহাবুব রহমান, বাদল, বিল্লাল হোসেন, সালাউদ্দিন সহ স্থানীয় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ স্থানীয় শত শত নারী পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

Tags

সাবসক্রাইব করুন!

সবার আগে নিউজ পেতে সাবসক্রাইব করুন!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন