SS TV live
SS TV
wb_sunny

এই মুহুর্তে

সোনারগাঁয়ে প্রশাসনের নির্দেশনা অমান্য করে বালু উত্তেলন


নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের
হরিহরদি এলাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নির্মাণে জমি ভরাটের নাম করে ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে অবৈধভাবে অবাধে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এতে হুমকির মুখে পড়েছে নদের উপজেলার বাংলা বাজার থেকে হরিহরদি বাজারে আসা যাওয়ার একমাত্র রাস্তাটি ও তীর সংলগ্ন ফসলি জমি। 

প্রশাসনকে তোয়াক্কা না করে স্থানীয়
সনমান্দী ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড বিএনপি সমর্থক মেম্বার সাইফুল, হরিহরদি গ্রামের মৃত ফজলুলের ছেলে আওলাদ হোসেন, মামুদী গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে এ কাজ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাদের এ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে চলতি মাসের ৩ তারিখ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে একাধিক লিখিত অভিযোগ দিয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সনমান্দী ইউনিয়নের ইজারা বহির্ভূত হরিহরদি এলাকায় রাস্তা থেকে ১৫/২০ ফুট দূরে ব্রহ্মপুত্র নদের
কিনারে বসানো হয়েছে স্থানীয়ভাবে সেলু মেশিন দিয়ে তৈরি করা ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে।

নদে বসানো ড্রেজারের পাইপের মুখ বেয়ে পানি ও বালু এসে পড়ছে । সেখান থেকে একাধিক সেলু মেশিনে বানানো ড্রেজারে মাধ্যমে সেই বালু নিয়ে ভরাট করা হচ্ছে অর্ধ কিলোমিটার দূরে লেলামদী গ্রামের হাজী আবুল হোসেন রতনের বাড়ির পাশে তারাই মালিকানাধীন জমিতে । এতে কৃষকের শাকসবজি ও বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। 

দ্রুত বালু উত্তোলন বন্ধ না করলে নদের তীর ও তীর সংশ্লিষ্ট যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা, হরোহরদি বাজার সহ  বিপুল পরিমাণ ফসলি জমি নদে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ,  ইউপি সদস্য ও বিএনপি নেতা সাইফুলের যোগসাজশে হরোহরদি গ্রামের বিএনপি সমর্থক আওলাদ হোসেন প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বালু উত্তোলন করছেন। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা প্রতিবাদ করলে বালু উত্তোলন কারীরা তাদের মিথ্যা মামলা ফাঁসানো সহ মারধর করে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।

এলাকার সাধারণ মানুষ একত্রিত হয়ে প্রতিবাদ করলেও বালু উত্তোলন বন্ধ রাখা না করে একইভাবে স্থানীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন চালিয়ে যাচ্ছে সাইফুল ও তার সহযোগীরা। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুইজন গ্রামবাসী বলেন, গত এক সপ্তাহ ধরে এই এলাকার নদ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছেন। এ ব্রহ্মপুত্র নদে বালু নিয়ে যেন হরিলুট চলছে। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে নদ থেকে কিছু অসাধু মহল অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা টাকা কামিয়ে নিচ্ছে। যেনতেন ভাবে বালু উত্তোলন করায় ধ্বংস হয়ে এলাকার ফসলি জমি, নষ্ট হবে পরিবেশ। 

প্রতিবেদক কাছে বালু উত্তোলনের বিষয়টি অস্বীকার করে ইউপি সদস্য সাইফুল ও আওলাদ হোসেন বলেন, সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছ থেকে অনুমতি নিয়েই বৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। 


তার কাছে অনুমোদনপ পত্র দেখতে চাইলে বালু উত্তোলনের অনুমতি চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লেখা আবেদনপত্রের ছবি দেখায়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাইদুল ইসলাম বলেন, ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে কাউকে বালু উত্তোলনের কোনো প্রকার অনুমোদন দেওয়া হয়নি।  অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের প্রমাণ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tags

সাবসক্রাইব করুন!

সবার আগে নিউজ পেতে সাবসক্রাইব করুন!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন