SS TV live
SS News
wb_sunny

এই মুহুর্তে

সোনারগাঁওয়ের ইতিহাসে সেরা ইউএনও সাইদুল ইসলামঃ সোনারগাঁওবাসী।

রুবেল মিয়া, সোনারগাঁও সময়ঃ নারায়ণগঞ্জে  করোনার হটস্পট হিসেবে ২য় স্থানে থাকা সোনারগাঁওয়ে জীবন বাজি রেখে অদম্য গতিতে দিনরাত এক করে কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউএনও সাইদুল ইসলাম।

গত (১লা) মার্চ  তিনি সোনারগাঁও উপজেলায় যোগদান করার পরপর সারাবিশ্বের ন্যায় দেশে শুরু হয় করোনাভাইরাস সংক্রমণের ভয়াবহতা। ডেঞ্জারজোনে থাকা নারায়ণগঞ্জকে করোনোর হটস্পট উল্লেখকরে পুরো জেলাকে করে দেয়া হয় লকডাউন। 

সদ্য যোগদানকৃত এই ইউএনও কিছু বুঝে উঠার আগেই শুরু হয়ে যায় এই মহামারী। কিন্তু তার ন্যায়পরায়ণতা, বিচক্ষন জ্ঞান ও কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে নির্বিঘ্নে প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। যে কারনে সোনারগাঁওবাসীর প্রশংসায় ভাসছে ইউএনও সাইদুল ইসলাম। 

করোনাভাইসের  কারনে লকডাউনে থাকা কর্মহীন হয়েপড়া অসহায় পরিবারগুলোর কথা চিন্তা করে সরকারের খাদ্য সহায়তাগুলো জেলা প্রশাসকের নির্দেশনা অনুযায়ী ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছেন তিনি। একজন উপজেলার অভিভাবকের মতোই অসহায় গরিব ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর  পাশে দাঁড়িয়েছেন এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।  করোনার মহামারি পরিস্থিতে কর্মরত ডাক্তার, নার্স বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় নিয়ে  উপজেলায় চালিয়ে যাচ্ছেন  উন্নয়ন মূলক কার্যক্রম, বাসায় বাসায় গিয়ে দেয়া হচ্ছে চিকিৎসা ।

 চিকিৎসা কাজে নিয়োজিত ডাক্তারদের করোনার সংক্রমণ থেকে মুক্ত থাকার জন্য সরকারি পিপিইসহ সুরক্ষা-সরঞ্জাম সরবরাহ করেন।সঠিক চিকিৎসা নিশ্চয়তার  জন্য প্রতিনিয়ত তদারকি করছে স্থানীয় হাসপাতালগুলোতে। শুধু তাই নয়  করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ, লক ডাউন বাস্তবায়ন, করোনা আক্রান্তদের হোম কোয়ারেন্টাইন ও তাদের খাদ্য ব্যবস্থা, প্রয়োজনীয় ঔষধ নিশ্চিত করা, ভোক্তা অধিকার নিশ্চিত ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে মনিটরিং করছে প্রতিনিয়ত। 
এছাড়াও করোনার এই মহামারী মোকাবিলায়  তার নিজ উদ্যোগে উপজেলার ১০ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভা থেকে তৈরি করেছেন সেচ্ছাসেবী টিম। তাদের মাধ্যমে উপজেলার অসহায় পরিবারের কাছে খাদ্যসামগ্রী পৌছানো, কৃষকদের ধান কাটা ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যাক্তির লাশ দাফনের সকল কার্যক্রম করে থাকেন।   ‘জনসেবার জন্য প্রশাসন’ এ শ্লোগানকে সামনে রেখে ‘উন্নত বাংলাদেশ’ গড়তে অবিরাম গতিতে তার উদ্যম সাহসিকতায়  এগিয়ে চলছে সোনারগাঁ উপজেলা প্রশাসন।

 কর্তব্যপরায়ণ এই ইউএনও দায়িত্ব নেয়ার পরপরই তিনি সরকারি সেবাগুলোকে সর্বাত্মক স্বচ্ছতার সাথে সাধারণ  জনগনের কাছে পৌঁছে দিতে নিয়েছেন বিভিন্ন উদ্যোগ।

জাতিসংঘ ঘোষিত এমডিজি অর্জনের লক্ষ্যে সরকার কর্তৃক প্রদত্ত মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, ভিজিডি ও হত দরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত ১০- টাকার চাউল উপযুক্ত ব্যক্তির কাছে পৌছে দিতে তিনি ব্যাক্তিগতভাবে নজরদারি করছেন। কৃষি উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে সরকারিভাবে সার ও বীজ পৌছানোর ব্যবস্থা করেছেন কৃষিবান্ধব ইউএনও।

স্থানীয় এলাকাবাসী সোনারগাঁও সময়ের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন,  এমন ইউএনও পাওয়া সত্যি ভাগ্যের ব্যাপার। যেখানে সরকারি  কর্মকর্তারা ছুটি নিতে ও লকডাউনে বাসায় আরাম আয়েশে ব্যস্ত। আর সেখানে আমাদের এই ইউএনও  ছুটিরদিন সহ সপ্তাহে প্রায় সাতদিনই জীবন বাজি রেখে ছুটে চলছে উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। তিনি সত্যিই একজন আদর্শ মানুষ। সোনারগাঁওয়ের ইতিহাসে সেরা ইউএনও।  তিনি আমাদের অন্যতম করোনাযোদ্ধা,তিনি হচ্ছেন মানবতার ফেরিওয়ালা।
 উপজেলা সাইদুল ইসলাম  জানান, জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রীর দেয়া খাদ্য সমগ্রী বিভিন্ন শ্রেণি পেশা মানুষের মাঝে সুষ্ঠভাবে বন্টন করা আমার নৈতিক দায়িত্ব। আমি আমার ন্যায়নীতি ও আদর্শকে পুজি করে দেশের মানুষের সেবা করে যেতে চাই। আমি ইনশাআল্লাহ এই সোনারগাঁওকে বাংলাদেশের অন্যতম  মডেল উপজেলা হিসেবে তৈরি করবো। 

Tags

সাবসক্রাইব করুন!

সবার আগে নিউজ পেতে সাবসক্রাইব করুন!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন